“সীতাকুণ্ডে মহিষ নিয়ে চলছে তোলপাড়”


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৭, ২০২২, ৫:০২ অপরাহ্ন / ৩১১
“সীতাকুণ্ডে মহিষ নিয়ে চলছে তোলপাড়”

“সীতাকুণ্ডে মহিষ নিয়ে চলছে তোলপাড়”
মোহরম আলী,(চট্টগ্রাম)সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি –
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় সমুদ্র থেকে ভেসে আসে দুই শতাধিক মহিষ,ধারণা করা হয়,ওই সকল মহিষ স্বন্দীপ থেকে বঙ্গোপসাগর দিয়ে সীতাকুণ্ডে ভেসে আসে?জানা যায়,সরকারী দপ্তরে রাখতে নির্দেশ দিলে,যারা মহিষগুলো উদ্ধার করেছেন তারাই করছেন লুটপাত।নাম না বলতে অনিচ্ছুক ব্যাক্তিবর্গ বলেন,সাগর থেকে ভেসে আসা মহিষগুলো কতগুলো স্থানীয় এলাকার মানুষের কাছে,কতগুলো র্শীপ ইয়ার্ডের মধ্যেই রয়েছে,তবে মহিষগুলো কার তা বিবেচনা না করে,তার মধ্যে মানুষের চোখ ফাঁকি দিয়ে কেউ করেছে জবাই এবং কেউ করেছে পাঁচার।কে বা কারা এসব কাজ করেছে তা জানতে চাইলে নাম না বলার মতো অনিচ্ছুক মহিষের তালিকা গুলো দেন তারমধ্যে কুমিরা ইউনিয়নের তিন নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ইদ্রিস জবাই করেছে একটি, আব্দুল্লাহ শিপ ইয়ার্ডের মাঠে জবাই করেছেন একটি,দুলা শিপ ইয়ার্ডের পাশে গত মঙ্গলবার (২৫ই,অক্টোবর ২০২২ খ্রিঃ) রাত এগারোটার দিকে ওখানকার এলাকার জনগণ জবাই করেছেন একটি,আলেকদিয়া বাসিন্দা সাধারণ জনগণ জবাই করছেন একটি।কুমিরা এলাকাস্থ মগবাজার গ্রামের তিনটি জবাই করেছেন তার মধ্যে,৭ নং কুমিরা ইউনিয়ন পরিষদের ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা  মহিষ জবাই করেছেন তিনটি,তারমধ্যে মোল্লাবাড়ির জাহেদ,বড় কুমিরা ঘাটঘরের মসজিদের পিছনের সংলগ্ন জামাল ও ব্রীজ সংলগ্ন ইউসুফের ছেলে।এছাড়াও বড় কুমিরায় প্রচুর মহিষ জবাই করেছেন,তারমধ্যে রাজাপুরের ইলিয়াস,রাজাপুরে শাহাদাত,আলমগীর,সাহাবউদ্দীন,তছলিম, বাচা ও মহিউদ্দীন নামক অনেকেই।৭ নং কমিরা ইউ পি চেয়ারম্যান কর্তৃক দেওয়া তথ্যমতে তেরটি মহিষ আমাদের জিম্মায় রয়েছে তার মধ্যে ৮ নং ওয়ার্ডের খোরশেদ মেম্বারের কাছে দুটি এবং ৭ নং ওয়ার্ডের জামাল মেম্বারের কাছে আছে এগারো টির মতো রয়েছে।সীতাকুণ্ডে বিভিন্ন উপকূলীয় তীরবর্তী  এলাকায় দুই শতাধিক মহিষ ভেসে আসে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার থেকে মুঠোফোনে জানতে চাইলে,সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেন।
এছাড়াও সীতাকুণ্ড মডেল থানার সাব-ইন্সপেক্টর ইমরান হোসেন থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন,গত রাতে আমি এবং আমার সহকর্মী সাব-ইন্সপেক্টর সাখাওয়াত এবং এ এস আই ইসমাঈল উদ্ধার কাজে নেমে পড়ে,এখনো পর্যন্ত আমরা সম্পূর্ণভাবে উদ্ধার করতে পারেনি তবে চেষ্টা চলতেছে,উদ্ধারকৃত মহিষ গুলো,প্রকৃত মালিক যাচাইয়ের মাধ্যমে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।