লালপুরে অবৈধ ভাবে পুকুর খননের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান


প্রকাশের সময় : মে ২৪, ২০২৩, ৬:১৫ অপরাহ্ন / ২৭
লালপুরে অবৈধ ভাবে পুকুর খননের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান
মেহেরুল ইসলাম মোহন লালপুর উপজেলা প্রতিনিধি
নাটোরের লালপুরে তিন ফসলী জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন, ফুল ব্যবসায় বাঁধা ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও ইউএনও বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করেছেন এলাকাবাসী।
বুধবার(২৪ মে-২৩)দুপুরে উক্ত মানববন্ধনে ভুক্তভোগীরা জানান,  লালপুর উপজেলার ১নং লালপুর ও ২নং ঈশ্বরদী ইউনিয়নের নবীনগর, শিবনগর,উত্তর লালপুর, লালপুর বাজার,লালপুর কলেজ মোড় সহ  গ্রামগুলোতে কয়েক হাজার মানুষের বসবাস। এখানকার অধিকাংশ মানুষ কৃষিজীবী।এই এলাকার প্রায় ৩শ বিঘা জমিতে মানুষ ফসল উৎপাদন করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে।
সম্প্রতি নাংলা মৌজার নবীনগর গ্রামে আবাদযোগ্য লিজকৃত জমিতে অনুমতি বিহীন একটি পুকুর খননের কাজ শুরু হয়।ঐ পুকুরটি খনন করলে এই এলাকার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়বে ফলে জলমগ্ন হওয়ায় এসব জমিতে ফসল উৎপাদন করা অসম্ভব হয়ে পড়বে । এ কারণে এলাকার মানুষ চরম দুর্ভোগের সম্মুখীন হবে এবং অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিধায় গত ১৭ মে বুধবার গভীর রাতে নাংলা মৌজায়-ফিরোজা বকুল শিল্পী গংদের  মালিকানাধীন জমিতে উপজেলার তিলকপুর গ্রামের জান্নাত আলীর ছেলে উজ্জল পুকুর খনন শুরু করলে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে গত ১৮ মে বৃহস্পতিবার ০১৯৭২৮৩২২০৭ নম্বর মোবাইল থেকে জানানো হয় এবং লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে লিখিত এবং মোবাইলে জানানোর পর তিনি তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দেন। প্রসাশনের আশ্বাস পেয়ে তারা এলাকায় ফিরে গেলেও গত ১৯ মে শুক্রবার গভীর রাতে আবারো সেখানে পুকুর খনন শুরু হয়। গ্রামবাসী তখন পুকুর খননের প্রতিবাদ জানিয়ে ফিরে আসেন। পরে পুকুর খননকারী ভেকু মেশিনটি কে বা কারা পুড়িয়ে দেয়। পরে পুকুর খননকারী উজ্জল হোসেন ভেকু মেশিন পোড়ানোর ঘটনায় গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে লালপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা ও গ্রেফতার আতঙ্কে কয়েক দিন যাবৎ গ্রামবাসী নিদ্রাহীন রাত কাটাচ্ছেন।
এসব ঘটনার প্রেক্ষিতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে লালপুর হলমোড় এলাকায় ফুল ব্যবসায়ী আব্দুর শুকুর ও জাফরের ফুলের গাড়ী (সিএনজি)আটকে রাখেন। একপর্যায়ে জেলা পুলিশ, ইউএনও এবং থানা পুলিশে অবহিত করা হয়। পরে তারা গাড়ী ছেড়ে দেয়, কিন্তু নিদিষ্ট সময় অতিবাহিত হওয়ায় গাড়ীতে থাকা সমস্ত ফুল বিক্রয় অনুপযোগী হয়ে পড়ে।যার বাজার মূল্য প্রায় ১০ লাখ টাকা বলে দাবী করেন ফুল ব্যবসায়ীরা।
এলাকাবাসী তিন ফসলী জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন, ফুল ব্যবসায় বাঁধা, হামলার হুমকি ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে এবং নষ্ট হয়ে যাওয়া ফুলের মূল্যের দাবীতে লালপুর- ঈশ্বরদী সড়কের নবীনগরে ও উপজেলা পরিষদ চত্বরে  মানববন্ধন করেন।এসময় তারা উপজেলা পরিষদের সামনে  নষ্ট হয়ে যাওয়া ফুল ছিটিয়ে প্রতিবাদ জানান।
মানববন্ধন শেষে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করেন।