যশোরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করার লক্ষে বাকড়া বাজারে প্রচার মিছিল।  


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৩, ২০২২, ৬:৪৫ অপরাহ্ন / ২৭৮
যশোরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করার লক্ষে বাকড়া বাজারে প্রচার মিছিল।  
যশোরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করার লক্ষে বাকড়া বাজারে প্রচার মিছিল।  

আঃজলিল, স্টাফ রিপোর্টারঃ–

২৪ নভেম্বর যশোরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করার লক্ষে যশোর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাড. মনিরুল ইসলাম মনির, ঝিকরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মুকুল ও সাধারণ সম্পাদক মুছা মাহমুদের নেতৃত্বে বাঁকড়া বাজারে এক বিশাল প্রচার মিছিল বের করা হয়।
মিছিলের আগে বাঁকড়া জে.কে মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে এক ফেসবুক লাইভ করেন যশোর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাড. মনিরুল ইসলাম মনির। এসময় কয়েকশ নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য শেখ হাসিনা দিনরাত পরিশ্রম করছে। শেখ হাসিনার কল্যাণে বাঁকড়া বাজারসহ সারা দেশে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে। দেশের মানুষ উন্নত রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। সারা বিশ্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে চিহিৃত হয়েছে। ফলে আমাদের উচিত শেখ হাসিনার জনসভায় সবাইকে দলে দলে যোগ দেয়া। তিনি আরো বলেন, যশোরের জনসভা একটি ঐতিহাসিক জনসভা।

কারণ এক সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান এই স্টেডিয়ামে জনসভা করেছিলেন। ঠিক তার ৫০ বছর পরে জননেত্রী শেখ হাসিনা একই স্থানে জনসভায় অংশ নেবেন। এছাড়া করোনার পরে এই প্রথম শেখ হাসিনা স্বশরীরে যশোরে জনসভায় অংশ নিচ্ছেন। এজন্য প্রত্যেক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকে এ জনসভায় যাওয়া উচিত। অন্যান্যদের মধ্যে প্রচার মিছিলে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা শাহাজান আলী, মাস্টার এনামুল কবীর, অশোক দত্ত, আকবর হোসেন জাপানী, আবুল কাশেম, মাজহারুল ইসলাম প্রিন্স, ইকবাল আহমেদ রবি, সাবেক কাউন্সিলর শরিফুল ইসলাম ও নিমাই চন্দ্র, কাজল রায়হান, আক্তারুজ্জামান, হাজিরবাগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তফা আসাদুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক বজলুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিন্টু, সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দীন, বাঁকড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার হেলালউদ্দীন খান, নির্বাসখোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউদ্দীন, প্রচার সম্পাদক আলমগীর হোসেন, শংকরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মাস্টার আদম শফিউল্লাহ, মণিরমিপুরের হরিহর নগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক রিপন কুমার ধর, আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত আলী, আব্দুল করিম, ইউপি সদস্য আতিয়ার রহমান, রেজাউল ইসলাম, এরশাদ আলী, ইস্রাফিলে হোসেন, ইয়াকুব আলী, রুবিয়া খাতুন, চায়না খাতুন, লতা খাতুন, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্নআহবায়ক শামসুজ্জোহা লোটাস, যুবলীগ নেতা মুনিরুল ইসলাম মিশর, লিন্টু বিশ্বাস, এম.আমিরুল ইসলাম জীবন, হাদিউসজ্জামান নয়ন, রকিবুল হাসান মিন্টু, আসাদুজ্জামান, নুরুল হক প্রমূখ’।

অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনী কল্যাণ সংস্থা (অসকস) যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলা  কর্তৃক   ২১শে নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালন।
মোঃ তহিদুল ইসলাম মণিরামপুর উপজেলা প্রতিনিধি –
উক্ত অনুষ্ঠান কুরআন তেলওয়াতের মাধ্যমে শুরু করা হয়।উক্ত কুরআন তেলওয়াত করেন,সার্জেন্ট মোঃ আসাদুজ্জামান (অবঃ) আইন বিষয়ক সম্পাদক, সেলিম আহম্মেদ, যশোর প্রতিনিধি : অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনী কল্যাণ সংস্থা (অসকস) যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলা শাখা কর্তৃক সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও প্রীতিভোজ অনুষ্ঠান -২০২২ মনিরামপুর উপজেলা অসকস এর সভাপতি সার্জেন্ট মোঃ হাফিজুর রহমান (অবঃ) সার্বিক সহযোগীতায় উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়াম এ অনুষ্ঠিত হয়।  উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি  মাননীয় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য এমপি,স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রণালয়,কিন্তু জরুরি কাজ থাকায় তিনি উপস্থিত থাকতে পারেননি। বিশেষ অতিথি  সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব সার্জেন্ট মোহাম্মদ ওসমান আলী (অবঃ)প্রধান আলোচক হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেন।
সভাপতির সূচনা বক্তব্য দেন, সার্জেন্ট মোঃ হাফিজুর রহমান (অবঃ)তিনি বলেন ২১ শে নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবস।যথাযথ মর্যাদা ও উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে দেশ ব্যাপি সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপিত হচ্ছে দেশব্যাপী। আমরা জানি স্বাধীনতার যুদ্ধচলাকালীন ১৯৭১ সালের ২১ শে নভেম্বর সেনা,নৌ ও বিমানবাহিনীর সমন্বয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে গঠিত হয়েছিল বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী।
সশস্ত্র বাহিনী দেশের স্বাধীনতা সাম্য ও জাতীয় ঐক্যের প্রতীক।আমাদের রাষ্ট্রীয় সকল প্রতিষ্ঠানেই কিছু না কিছু বিভক্তি আছে, কিন্তু আমাদের সশস্ত্র বাহিনী হল অখন্ডতা আস্থা ও জাতীয় ঐক্যের প্রতীক।সশস্ত্র বাহিনীর প্রতি দেশের জনগণ সবসময় আস্থাশীল। তারি ধারাবাহিকতায় আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপন উপলক্ষে অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র   বাহিনী কল্যাণ সংস্থা উপজেলা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে স্বাগত জানাচ্ছি। একই সাথে সকল সন্মানীত অতিথিবৃন্দকে  জানাচ্ছি সশস্ত্র  বাহিনী দিবসের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।
আমি সর্বপ্রথমেই গৌরবময় এই দিনে সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে,যার উদাত্ত আহ্বানে সাড়া দিয়ে বাঙ্গালী জাতি ঝাঁপিয়ে পড়েছিল মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে একি সাথে স্বরণ করছি মুক্তিযুদ্ধের  সকল বীর শহীদদের। সকলের মাগফেরাত কামনা করছি।এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,
কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও জেলা সভাপতি কর্পোরাল জনাব মোঃ আনোয়ার হোসেন (অবঃ),জেলা সাধারণ সম্পাদক কর্পোরাল জনাব মোঃ আশরাফুল ইসলাম রনি (অবঃ)এ ছাড়াও swo মোঃ ইউনুস আলী(অবঃ)swo মোঃ হাফিজুর রহমান,
,এছাড়াও মণিরামপুর উপজেলা উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য,এবং যশোর জেলা,সহ বিভিন্ন উপজেলার সদস্য উপস্থিত ছিলেন। উপজেলা সভাপতি সার্জেন্ট(অবঃ) হাফিজুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশের প্রথম  ডিজিটাল জেলা যশোর তাই আমরা এতো অল্প সময়ের ব্যবধানে এতো সুন্দর একটি অনুষ্ঠান করতে পেরে মহান আল্লাহপাক এর নিকট শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি, বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন,
এবং তাদের সংগঠনের দাবি দেওয়া সরকারের নিকট উপস্থাপন করেন তিনি।ভবিষ্যতে মনিরামপুর উপজেলা অসকস যেকোনো সদস্যের যেকোনো সমস্যায় সবাইকে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান,উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতি সার্জেন্ট(অবঃ)জনাব মোঃ হাফিজুর রহমান। সভাপতি মণিরামপুর উপজেলা শাখা,ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক কেন্দ্রীয়  কমিটি,সকলের সুস্বাস্থ্য কামনা করে,অনুষ্ঠান সমাপ্তি করেন,এবং সকলের মাঝে
দুপুরের খাবার বিতরণের মাধ্যমে উক্ত অনুষ্ঠানটি  সমাপ্ত করা হয়।
যশোরের বেনাপোল দিয়ে দেশে ফিরল ভারতে পাচারের শিকার ২৪ কিশোর-কিশোরী।
আঃজলিল, স্টাফ রিপোর্টারঃ—
ভালো কাজের প্রলোভনে ভারতে পাচারের শিকার ২৪ বাংলাদেশি কিশোর কিশোরীকে ৫ বছর পর  স্বদেশ প্রত্যাবাসন আইনে যশোরের  বেনাপোলে হস্তান্তর করেছে ভারতের কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশ উপ হাইকমিশন। মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ আইনি প্রক্রিয়া শেষে এসব বাংলাদেশিদেরকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ফেরত আসা কিশোর-কিশোরীদের বাড়ি  যশোর, সাতক্ষীরা, কক্সবাজার, নওগা, চট্রগ্রাম, ঢাকা, বাগেরহাট  ও বরিশাল জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে। ফেরত আসা বাংলাদেশিদের আইনী সহয়তা দিতে  ১৩ জনকে জাস্টিস এন্ড কেয়ার, ৬  জনকে বাংলাদেশ মহিলা আইনজিবী সমিতি ও ৫ জনকে রাইসট যশোর নামে ৩টি এনজিও সংস্থ্যা গ্রহন করেছে।
জাস্টিস এন্ড কেয়ারের সিনিয়ার প্রগ্রামার অফিসার এবিএম মুহিত হোসেন জানান, সংসারে অভাব অনটনের কারনে  ভাল কাজের প্রলোভনে দেশের বিভিন্ন সীমান্ত পথে দালালের মাধ্যমে এরা  ভারতে যায়। এসময় অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ভারতীয় পুলিশ তাদের আটক করে আদালতে পাঠায়।  পরে দুই দেশের সরকারের সহযোগীতায় স্বদেশ প্রত্যাবাসন আইনে তারা দেশে  ফেরার সুযোগ পায়। ফেরত আসা বাংলাদেশিরা যদি পাচারকারীদের সনাক্ত করে আইনী সহয়তা চাই দেওয়া হবে বলে বলে জানান এনজিও সংস্থ্যার কর্মকর্তারা। কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশ উপহাইকমিশনের কাউন্সেলর (কনস্যুলার) এএসএম আলমাস হোসেন জানান, অভিভাবকদের আরো সচেতন হতে হবে। যাতে এসব অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে, মেয়েরা ঘর থেকে বিপথগামী না হয়।

মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি পালানোর কারনে বেনাপোল চেকপোস্টে বিশেষ সতর্কতা জারি।

আঃজলিল,স্টাফ রিপোর্টারঃ–

ঢাকার আদালত এলাকায় ‘পুলিশের চোখে স্প্রে মেরে’ পালিয়ে যাওয়া মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি যাতে দেশত্যাগ করতে না পারে তাই বেনাপোল চেকপোস্টে বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।
একইভাবে বেনাপোলসহ যশোর জেলার বিভিন্ন সীমান্তে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন যশোর ৪৯ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেনেন্ট কর্নেল শাহেদ মিনহাজ সিদ্দিকী।

বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পরিদর্শক (তদন্ত)মাহাবুবুর রহমান বাংলা খবরের প্রতিনিধিকে বলেন,আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় আছি।আমাদের সকল অফিসারকে ব্রিফিং করা হয়েছে। পলাতক জঙ্গিদের ছবি সবাই দেখেছে।তাদের নাম ঠিকানা ও ছবি টাঙ্গিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি কামাল ভূঁইয়া বলেন,দুই জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় দেশব্যাপী এলার্ট জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।সেই নির্দেশ আসার পর পরই গোটা ইমিগ্রেশন এলাকায় ব্যাপক সতর্কতা নেওয়া হয়েছে।সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে টহল বাড়ানো হয়েছে।পাশাপাশি সাদা পোশাকে পুলিশের নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।

লেফটেন্যান্ট কর্ণেল শাহেদ মিনহাজ সিদ্দিকী বলেন,মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি যাতে দেশত্যাগ করতে না পারে সেজন্য বেনাপোলের বিভিন্ন সীমান্তে রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে।নিয়মিত টহলের পাশাপাশি সীমান্তে বাড়তি সতর্কতা ও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।তাদের ধরতে সীমান্ত এলাকায় সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন,“সীমান্ত পথে জঙ্গিরা যাতে দেশ ত্যাগ করতে না পারে সে জন্য সার্বক্ষণিক সতর্কতা রয়েছে।নিরাপত্তাও জোরদার করা হয়েছে।এদেশ থেকে যারা ভারতে যাচ্ছেন তাদের পাসপোর্ট ও ভিসা সম্পূর্ণ যাচাই বাছাই করে দেশত্যাগের অনুমতি দিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।”

প্রেরক,

আঃজলিল

“মনিরামপুর শিশু কিশোরদের নামাজী করতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ”
আব্দুল্লাহ আল মামুন, যশোর জেলা প্রতিনিধি –
একটানা ৪০দিন পাঁচ ওয়াক্ত মসজিদে জামাতের সাথে নামাজ আদায় করলেই মিলবে স্কুল ব্যাগ।
 ইসলাম প্রচার ও নামাজের প্রতি শিশু-কিশোরদের উদ্ভূধ্যকরতে টানা ৪০দিন জামাতের সাথে পাঁচ ওয়াক্ত  নামায আদায়ে পাওয়া যাবে একটি স্কুল ব্যাগ।এ ছাড়াও যদি কোন শিক্ষার্থী পরপর ৪০দিন না পারে তাদের জন্যও আছে টুপি, খেলনা,বিস্কুট,চিপস, চকলেট সহ নানা উপহার। ভিন্নধর্মী এই উদ্যেগ নিয়েছে যশোরের মনিরামপুরে শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে পরিচালিত “সম্মিলনী মানবসেবা ও ব্লাড ডোনার ” নামে এক সমাজসেবী সংগঠন।
সরেজমিনে কথা  হলে সংগঠনের অভি হাসান বলেন,গত ২২শে অক্টোবর  থেকে এ উদ্যেগ নিয়েছিও গতকাল ৪০ দিন পূর্ন হওয়ায় কাশিপুরে ৫জন শিক্ষার্থীকে ৫টি ব্যাগও দিয়েছি।আমরা আপাতত মনিরামপুরের কাশিপুর মাইদারকান্দা  মসজিদ ও সাতনল খানপুর দক্ষিন মহলদার পাড়া জামে মসজিদে দিয়েছি। তাদের এই পরিকল্পনা প্রসার ঘটাতে জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসতে আহবান করেছেন এই সংগঠনের সদস্যরা।