বরিশালে ৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকার সেতুতে উঠতে হয় সিঁড়ি দিয়ে!


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৮, ২০২২, ৫:৫১ অপরাহ্ন / ৫১৫
বরিশালে ৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকার সেতুতে উঠতে হয় সিঁড়ি দিয়ে!

বরিশালে ৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকার সেতুতে উঠতে হয় সিঁড়ি দিয়ে!

রমজান আহম্মেদ (রঞ্জু), বরিশাল ব্যুরো চীফ –
বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার কবাই ইউনিয়নের হানুয়া বাজার সংলগ্ন খালের
উপর ৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুর এ্যাপোচ সড়ক নির্মাণ না করায় চরম
দুর্ভোগে পরেছেন স্থানীয়রা। সেতুতে উঠতে স্থানীয়রা কাঠের সিড়ি বানিয়ে যাতায়াত করতে
গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছেন। বিষয়টি দেখার যেন কেউ নেই। সংশ্লিষ্ট সূত্রে
জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের অর্থায়নে ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের এ
সেতুটির নির্মাণ সময়সীমা ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছিলো।
অথচ ২০১৯ সালের জুলাই মাসে কাজ শুরু করেন ঠিকাদার নাসির মাঝি। ২০২১ সালের
এপ্রিল মাসে সেতুটির ঢালাই, উপরের রেলিংয়ের কাজ শেষ করে ঠিকাদার। প্রায় দেড় বছর
আগে সেতুটির নির্মাণ কাজ অসম্পূর্ণ ফেলে রাখে ঠিকাদার। জনগুরুত্বপুর্ণ এ সেতুর
সংযোগ সড়ক নির্মাণে কোনো উদ্যোগ নেই ঠিকাদারের। ফলে স্থানীয়দের সেতুটি কোন
উপকারে আসছে না। স্থানীয়রা জানান, সেতুর দুই পাড়ে দুটি বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,
ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র, লঞ্চঘাট ও বাসস্ট্যান্ডে প্রতিনিয়ত চলাচল করতে গিয়ে
ভূক্তভোগীদের সিমাহীস দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রায় ২০ ফুট উচ্চতার কাঠের সিড়ি বেয়ে
সেতুতে উঠতে গিয়ে প্রায়ই শিক্ষার্থীসহ বৃদ্ধরা দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছেন। স্থানীয়
এলজিইডি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানিয়েও কোন সুফল মেলেনি।
এ ব্যাপারে এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী মো. আবুল খায়ের বলেন, সেতু নির্মাণের সাথে
এ্যাপ্রোচ সড়কটি ধরা ছিল না বিধায় ঠিকাদার এ্যাপোচের কাজ করতে পারেনি। তিনি
আরও বলেন, এ্যাপ্রোচ সড়কের জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। বরাদ্দ পেলেই এ্যাপ্রোচ
সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে।

বরিশালে ডাকাত আতঙ্কে নির্ঘুম নগরবাসী।

রমজান আহম্মেদ (রঞ্জু), বরিশাল ব্যুরো চীফ –
বরিশাল : মধ্যরাতে হঠাৎ ডাকাত আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় নির্ঘুম রাত কেটেছে বরিশাল
নগরবাসীর। মসজিদের মাইক থেকে এলাকাবাসীকে সতর্ক হওয়ার আহ্বানও জানানো হয়।
এ নিয়ে মধ্যরাতে নগরবাসীর মধ্যে বেশ আতঙ্ক-উৎকন্ঠা সৃষ্টি হলে আইন-শৃঙ্খলা
বাহিনী তাদের নজরদারী ও টহল কার্যক্রম বাড়িয়ে দেয়। যদিও এরমধ্যেই অনেকে বিষয়টি
সত্যি না গুজব তা যাচাইয়ে সড়কে নেমে পরেন। নগরের বিভিন্ন স্থানে খবর নিয়ে জানা
গেছে, হঠাৎ করেই বুধবার (০৭ ডিসেম্বর) রাত ১টার দিকে বরিশাল নগরের উত্তরপ্রান্ত
থেকে একের পর এক মসজিদের মাইক দিয়ে ডাকাত দলের হানা দেওয়ার খবরে সতর্ক
থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রচার চালানো হয়েছে। যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে গোটা বরিশাল
মেট্রোপলিটন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে এবং একের পর এক মসজিদে স্থানীয়দের সতর্ক
থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রচারণা চলানো হয়। যদিও নগরের কোথাও কোনো ডাকাতির খবর
পায়নি পুলিশ। মধ্যরাতে বরিশাল নগরে ডাকাত আতঙ্কের খবর ছড়িয়ে পড়ার ফেসবুক
লাইভে এসে জনসাধারণকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ
ছাত্রলীগের নেতারা। রাত আড়াইটার দিকে বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের আহ্বায়ক রইজ
আহমেদ মান্না বলেন, বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুনছি গুজব তাই লাইভে চলে এসেছি। আমরা
ঢাকায় ছাত্রলীগের সম্মেলনে গিয়েছিলাম, বরিশালে আসার সময় পথে লঞ্চে বসেও শুনেছি
এখানেও নাকি ডাকাতি হবে। তাই আমরা সবাই ঘুম থেকে উঠে গেছি। আমাদের মনে হচ্ছে
ষড়যন্ত্রকারীর নতুন জাল বিছিয়েছে। সারা বাংলাদেশে নাকি একসঙ্গে ডাকাতি হবে এই
ভুয়া ও গুজব খবর কারা ছড়াতে পারে তা আপনারা আমাদের থেকে ভালো জানেন। সারা
বরিশালের অলিতে-গলিতে যতো মসজিদ আছে সেগুলোকে কাজে লাগিয়ে সবজায়গাতে
অপপ্রচার করছেন, যে সমস্ত শহরে ডাকাত পড়েছে। বরিশাল শহরে আমরা ৮ লাখ লোক
বাস করি, কয়জন ডাকাত আসবে আর কতজন মিলে এই শহরের সবাইকে ডাকাতি করবে।
এই ডাকাতির খবরের বিষয়টি সম্পূর্ণ একটি গুজব মনে হচ্ছে, ডাকাতি হওয়ার মতো
পরিস্থিতি বরিশালে নেই। আসলে ষড়যন্ত্রকারীরা এই গুজব ছড়িয়ে দেশকে নতুন কোন
দিকে ধাবিত করতে চাচ্ছে। টানা ৭ মিনিট ২২ সেকেন্ডের লাইভের ওই ভিডিওতে তিনি
বরিশালসহ দেশবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। এসময় তিনি ছাত্রলীগের
নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার পাশাপাশি অপপ্রচারকারীদের প্রতিহত করার আহ্বান
জানান। আর মসজিদে কারা এ খবর পৌঁছাচ্ছে, প্রপাগান্ডা ছড়াচ্ছে হুজুরদের সঙ্গে কথা
বলে তাদের ধরতে হবে, আইনের আওতায় আনতে হবে। এর আগে রাত সোয়া দুইটার দিকে
বরিশাল সিটি করপোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ সাঈদ আহমেদ মান্না
৩ মিনিট ২১ সেকেন্ডের অপর এক ফেসবুক লাইভে বলেন, ২১ নম্বর ওয়ার্ডের সবকটি
মসজিদ থেকে মাইকিং হইছে এলাকায় ডাকাত পরেছে। পাশাপাশি ২২, ২৩, ১৪, ১৫, ২০

নম্বর ওয়ার্ডেও মসজিদ থেকে আধঘণ্টা চল্লিশ মিনিট আগে ‘এলাকায় ডাকাত পরেছে
সবাইকে সতর্ক থাকার জন্য’ মাইকিং হচ্ছিলো। বিষয়টি শোনার পর সঙ্গে সঙ্গে মেয়র
মহোদয়কেও বিষয়টি জানিয়েছি এবং তাৎক্ষণিক মোটরসাইকেল নিয়ে এলাকার বিভিন্ন
জায়গায় খোঁজ নিয়েছি এর কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। পরে মসজিদে লোক পাঠিয়েছি,
সেখানে তালা দেয়া, হুজুরদের ফোন দিচ্ছি তারা ফোন ধরছে না, তাহলে মাইকিং করলো
কারা? এলাকার লোকজন বাইরে বের হয়ে আসছে তবে কোথাও এ ধরনের খবরের সত্যতা
পাওয়া যায়নি, ডাকাতের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। তিনি নগরবাসীকে আতঙ্কিত না হওয়ার
জন্য আহ্বান জানিয়ে বলেন, শান্তির নগরী বরিশালের পরিবেশকে বিনষ্ট করার জন্য কেউ
ষড়যন্ত্র করতে পারে। মানুষের মস্তিষ্ক অন্য দিকে ডাইভার্ট করে অন্য কোনো বড়
ষড়যন্ত্রও থাকতে পারে। এখন পর্যন্ত এটা গুজব বলে মনে করছি এবং বড় ধরনের
ষড়যন্ত্র। এ সম্পর্কে বরিশাল মেট্রোপলিটনের কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত
কর্মকর্তা (ওসি) আজিমুল করিম বলেন, এখন পর্যন্ত বরিশাল শহরে ডাকাতির বিষয়ে
সঠিক কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। অনেকে আতঙ্কিত হয়ে ফেসবুকে পোস্ট করছেন। আমরা
শুনেছি কেউ কেউ মসজিদে মাইকিং করেছে। সর্বত্র পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে।
আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। যদিও এ পরিস্থিতিতে সবাইকে গুজব থেকে সতর্ক থাকার
আহ্বান জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কাউকে ডাকাত সন্দেহ হলে পুলিশকে জানানোর
অনুরোধ করা হয়েছে। সেইসঙ্গে বিষয়টি খতিয়ে দেখার কথা জানিয়েছেন বরিশাল
মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. সাইফুল ইসলাম। অপরদিকে ডাকাত আতঙ্কের
মাইকিং বিষয়ে পুলিশের সঙ্গে কথা হয়েছে উল্লেখ করে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক
(সার্বিক) সোহেল মারুফ বলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জেলা প্রশাসনকে জানিয়েছেন,
মোড়ে মোড়ে পুলিশের গাড়ি টহল দিচ্ছে। মাইকিং সম্পর্কে পুলিশের কাছে পরিষ্কার
ম্যাসেজ নেই, তবে মাইকিং হচ্ছে মর্মে তারা জানিয়েছেন। মাইকিং এর বিষয়টি পরিকল্পিত
হতে পারে। তাই কাউকে আতংকিত না হতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। উল্লেখ্য, বিগত
কয়েকদিন ধরে বরিশালসহ আশপাশের জেলা উপজেলায় মধ্যরাতে ডাকাত আতঙ্কে বিভিন্ন
মসজিদ থেকে মাইকিং এর খবর পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া সম্প্রতি আগৈলঝাড়া, উজিরপুর ও
বাবুগঞ্জে ডাকাতি ও চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে সংঘবদ্ধ দুস্কৃতীরা।
তারিখঃ 07/12/2022
মোবাঃ 01620849601