“ফেনীতে বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরণ”


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৩, ২০২২, ৭:২৯ অপরাহ্ন / ২৬৩
“ফেনীতে বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরণ”
“ফেনীতে বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরণ”
আবুল হাসনাত রিন্টু, ফেনী প্রতিনিধি, ২০২২-২৩
মৌসুমে প্রনোদনা কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে।  ফেনী সদর উপজেলা পরিষদ হল রুমে এ কর্মসূচির আওতায় ৭ হাজার ৫১০ জন কৃষকের মাঝে এ প্রণোদনা বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর)   এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। ফেনী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসাইন পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শুসেন চন্দ্র শীল। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান একে শহীদ উল্লাহ খোন্দকার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জোসনা আরা জুসি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফেনী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমীন আক্তার।
সূত্রে জানা যায়, প্রণোদনার আওতায় ১০০ জন গম চাষিকে জন প্রতি ২০ কেজি বীজ, ২০ কেজি সার দেয়া হয়েছে। একইভাবে ৮০ জন ভুট্টা চাষিকে জন প্রতি ২ কেজি বীজ ও ৩০ কেজি সার, ছয় হাজার ২৯০ জন সরিষা চাষিকে এক কেজি বীজ, ২০ কেজি সার, ৬৫০ জন সূর্যমুখী চাষিকে এক কেজি বীজ ও ২০ সার, ৫০ জন চিনাবাদাম চাষিকে ১০ কেজি বীজ ও ১৫ কেজি সার, ৩০ জন সয়াবিন চাষিকে ৮ কেজি বীজ ও ২০ কেজি সার, ৩০ জন মুগ চাষিকে ৫ কেজি বীজ ও ১৫ কেজি সার, ১৯০ জন মসুর চাষিকে ৫ কেজি বীজ ও ১৫ কেজি সার, ৯০ জন খেসারী চাষিকে জনপ্রতি ৮ কেজি বীজ ও ১৫ কেজি সার দেয়া হয়েছে।
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমীন আক্তার জানান, মঙ্গলবার উদ্বোধনী দিনে ফেনী সদর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও রাসায়নিক বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার ও বৃহস্পতিবার পর্যায়ক্রমে বাকি প্রণোদনা তালিকাভুক্ত কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। এ কর্মসূচির আওতায় ফেনী সদর উপজেলায় ৪৯ লক্ষ ৬৬ হাজার টাকা বরাদ্দের অনুকূলে এ প্রণোদনা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।
“ফেনীর ৫ যুবদল নেতাকে শোকজ: যথাসময়ে লিখিতভাবে কারন দর্শানোর নির্দেশ”
আবুল হাসনাত রিন্টু, ফেনী প্রতিনিধি,
ফেনীতে যুবদলের বিভিন্ন পর্যায়ের ৫ যুবদল নেতাকে শোকজ করা হয়েছে। এদের মধ্যে ফেনীর জেলা, উপজেলা ও পৌর পর্যায়ের দায়িত্বশীল নেতাদের নাম রয়েছেন।সোমবার যুবদলের সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান দুলাল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, “একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে সংগঠনের শৃঙ্খলা বিরোধী কাজ করেছেন বলে বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ রয়েছে। তবুও তাদেরকে এমতাবস্থায় কেন সাংগঠনিক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না? তা আগামী ২৮ নভেম্বরের মধ্যে দলের প্রধান কার্যালয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সামনে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে লিখিতভাবে কারণ দর্শানোর জন্য নির্দেশ দেয়া গেল। সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোনায়েম মুন্নার নির্দেশক্রমে এ নোটিশ দেয়া হয়েছে।
নোটিশপ্রাপ্তরা হলেন- জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি হাবিবুল্লাহ পারভেজ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দাউদুল ইসলাম মিনার, সদর উপজেলা আহবায়ক নিজাম উদ্দিন, পৌর আহবায়ক নিজাম উদ্দিন সোহাগ, সোনাগাজী উপজেলা সদস্য সচিব ইমাম হোসেন প্রবীর। এ বিষয়ে জানতে ফেনী জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খন্দকারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে বারবার ফোন বন্ধ দেখিয়েছে।
“ফেনী-সোনাগাজীতে ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ”
আবুল হাসনাত রিন্টু, ফেনী প্রতিনিধি,
ফেনীর সোনাগাজীতে মোহাম্মদ শাহ আলম নামে এক উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রবাসী পরিবারকে ভয় দেখিয়ে ঘুস গ্রহণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘুসের টাকা ফেরত চেয়ে ও শাস্তি দাবি করে ক্ষতিগ্রস্ত তাছলিমা আক্তার ফেনী জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।অভিযুক্ত শাহ আলম উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের চরসোনাপুর গ্রামের মৃত মাহবুবুল হকের কন্যা তাছলিমা আক্তার তার মা রোকেয়া বেগম ও তার তিন ভাই চরসোনাপুর মৌজার নং ২৯২ সি এস এ ৮৯১ নং খতিয়ানে ২১৯১ ও দাগে তিন শতক ভূমির খরিদ সূত্রে মালিক দখলকার হিসেবে রয়েছেন। তারা ওই জমিতে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে তার চাচাতো ভাই শাহজাহান সিরাজি ফেনীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে (এডিএম কোর্টে) ১৪৫ ধারা মোতাবেক ৫৪২নং একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় সোনাগাজী মডেল থানার ওসি ও সোনাগাজীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদেশ দেন। আমিরাবাদ ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা শাহ আলম বিষয়টি তদন্ত করেন। তদন্ত শেষে তাছলিমা, তার মা ও ভাবিকে ডেকে বলেন, আমি তদন্ত করে এবং কাগজপত্র পর্যালোচনা করে অবগত হয়েছি ওই জমির মালিক ও ভোগদখলদার আপনারা। কিন্তু হয়রানির উদ্দেশ্য প্রতিপক্ষ মামলাটি আনায়ন করেছেন। এটি বাদীর বৃদ্ধ পিতাও আমার কাছে স্বীকার করেছেন। আমি আদালতে সত্য রিপোর্ট লিখে দিলে প্রথম তারিখেই মামলাটি নথিভুক্ত হয়ে যাবে। তবে এসি ল্যান্ড ও এডিএম-র খরচের জন্য ২০ হাজার টাকা দিতে হবে। তারা তার দাবি মোতাবেক টাকা দিতে অস্বীকার করলে, মামলার রায় তাদের বিপক্ষে যাবে বলে জানিয়ে দেন। এছাড়া তাদের চরম ক্ষতি হবে বলে তাদেরকে হুমকিও দেন শাহ আলম। এক পর্যায়ে অব্যাহত হুমকিতে তাছলিমা, তার মা ও ভাবি ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েন। আমিরাবাদ ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ও তার প্রতিবেশী মাসুদ আলম এবং প্রবাসে থাকা দুই ভাইকে অবগত করে শাহ আলমের অফিসে যান। তার দাবি মোতাবেক ২০ হাজার টাকা দেন। এসি ল্যান্ড ও এডিএমকে তিনি ম্যানেজ করবেন বলে বিষয়টি কাউকে জানাতে নিষেধ করেন। পরে তারা জানতে পারেন শাহ আলম এসি ল্যান্ড এবং এডিএম-র নামে তাদেরকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ওই টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। তাই শাহ আলমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তি, টাকা ফেরতসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে জেলা প্রশাসকসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন।
উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা শাহ আলম বলেন, আমি কথা অনুসারে তাদের কাজ করে দিয়েছি। টাকা গ্রহণের ব্যাপারে অফিসে বসে কথা বলতে হবে, ফোনে মন্তব্য করা যাবে না। কোথাও ভুল হলে প্রয়োজনে ঠিক করে দেব। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসএম অনিক চৌধুরী বলেন, তাছলিমা আক্তারের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে সত্যতা পেলে শাহ আলমের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।