ঝিনাইদহে বহুল আলোচিত আ’লীগ নেতার জ্ঞাত আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনে দুদকের মামলা!


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৭, ২০২২, ৭:১৪ অপরাহ্ন / ২৯৫
ঝিনাইদহে বহুল আলোচিত আ’লীগ নেতার জ্ঞাত আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনে দুদকের মামলা!
ঝিনাইদহে বহুল আলোচিত আ’লীগ নেতার জ্ঞাত আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনে দুদকের মামলা!
শহিদুজ্জামান বাবু, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধিঃ
ঝিনাইদহ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পোড়াহাটী ইউনিয়নের বহুল আলোচিত চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম হিরণের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভুত সম্পদ অর্জনের দায়ে মামলা হয়েছে। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ঝিনাইদহ সমন্বিত অফিসের সহকারী পরিচালক বজলুর রহমান মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) বাদী হয়ে মামলাটি করেন। ঝিনাইদহ দুদুকের নতুন অফিস স্থাপনের পর এটিই প্রথম মামলা বলে জানা গেছে। মামলায় উল্লেখ করা হয় আসামী শহিদুল ইসলাম হিরণ এক কোটি ৩৩ লাখ ৯৪ হাজার ৩৩৩ টাকা জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেছেন। এই সম্পদ আয় করতে তিনি দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছেন। এজাহার সুত্রে জানা গেছে, শহিদুল ইসলাম হিরণ ১৯৮৮ সাল থেকে ২০০৩ সাল এবং ২০০৯ সাল থেকে অদ্যবধী পর্যন্ত ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ৯ নং পোড়াহাটী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দায়িত্ব পালনকালে তিনি নিজে ও তার উপর নির্ভরশীল ব্যক্তিদের নামে ১৮ লাখ ৫৭ হাজার ৪৩৩ টাকার জমি এবং এক কোটি ২০ লাখ টাকা মুল্যমানের বাড়ি নির্মানসহ এক কোটি ৩৮ লাখ ৫৭ হাজার ৪৩৩ টাকা স্থাবর, গাড়ি, ব্যাবসায়ীক পুজি, ইলেক্টিক, ইলেকট্রনিকস ও আসবাবপত্রসহ মোট ২২ লাখ ৭৬ হাজার ৬৭০ টাকার অস্থাবর সম্পদ অর্জন করেছেন। এ সকল সম্পদ অর্জনের উৎস হিসেবে সম্মানী ভাতা, গৃহ সম্পত্তি, কৃষি ও জমি বিক্রিসহ বিভিন্ন খাত থেকে ৪৫ লাখ ৪৬ হাজার এক’শ টাকার আয় পাওয়া যায়। পারিবারিকসহ অন্যান্য খাতে শহিদুল ইসলাম হিরনের ব্যায় পাওয়া যায় ১৬ লাখ ৬ হাজার ৪৩০ টাকা। আয় থেকে তার ব্যায় বাদ দিলে তার সঞ্চয় থাকে ২৯ লাখ ৩৯ হাজার ৬৭০ টাকা। যার বিপরীতে তার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ পাওয়া যায় এক কোটি ৬১ লাখ ৩৪ হাজার ৩ টাকা। এজাহারে উল্লেখ করা হয়, এ ক্ষেত্রে তার জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে এক কোটি ৩৩ লাখ ৯৪ হাজার ৩৩৩ টাকার অসঙ্গতিপুর্ন ও জ্ঞাত আয়ের উৎস্য বহির্ভুত সম্পত্তি পাওয়া যায়, যা তিনি দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জন করেছেন বলে প্রাথমিক ভাবে প্রতীয়মান হয়। ফলে দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের ২০০৪ এর ২৭ (১) ধারায় অপরাধ করায় এ মামলা দায়ের করা হয়। উল্লেখ্য এর আগে প্রথম অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে দুদকের যশোর অফিসের সহকারি পরিচালক শহিদুল ইসলাম মোড়ল ও দ্বিতীয় অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে সহকারি পরিচালক মোশাররফ হোসেন দায়িত্ব পালন করেন। মামলার বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম হিরন বলেন, একটি মহল আমাকে হয়রানী করার জন্য ষড়যন্ত্র মূলক ভাবে এই মামলা করিয়েছে। মামলাটি মিথ্যা ও অসঙ্গতিপুর্ন। আমি আইনত ভাবে এই মামলার মোকাবেলা করবো বলে তিনি জানান।