“জগন্নাথপুরে ২ ভাইয়ের জঙ্গি সম্পৃক্ততায় আতঙ্কে এলাকাবাসী”


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৬, ২০২২, ৭:৫১ অপরাহ্ন / ৩০৪
“জগন্নাথপুরে ২ ভাইয়ের জঙ্গি সম্পৃক্ততায় আতঙ্কে এলাকাবাসী”
“জগন্নাথপুরে ২ ভাইয়ের জঙ্গি সম্পৃক্ততায় আতঙ্কে এলাকাবাসী”
রনি মিয়া, জগন্নাথপুর প্রতিনিধিঃ
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের সৈয়দ মারুফ আহমেদ মানিক (৩১) নতুন জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল আনসারফীল হিন্দাল শারক্বিয়ার সদস্য হিসেবে র‍্যাবের হাতে ধরা পড়েছে। তার বড় ভাই হাফেজ নাঈম ২০০৪ সালে সিলেটের হযরত শাহজালাল (রাঃ) মাজারে তৎকালীন ব্রিটিশ হাইকমিশনার জগন্নাথপুরের সন্তান আনোয়ার চৌধুরীর ওপর গ্রেনেড হামলা ও সাবেক অর্থ মন্ত্রী এসএম কিবরিয়া হত্যা মামলার আসামি হিসেবে জেল হাজতে রয়েছে।গত বৃহস্পতিবার জঙ্গি তৎপরতায় সংশ্লিষ্ট এবং জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেওয়ায় জড়িত এমন অভিযোগে বান্দরবানের রোয়াংছড়ি বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে সেখান থেকে নতুন জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বিয়ার সদস্যদের গ্রেপ্তার অভিযানে জগন্নাথপুরের সৈয়দপুর গ্রামের জঙ্গি নাঈমের ছোট ভাই সৈয়দ মারুফ আহমেদ ওরফে মানিক গ্রেফতার হয়েছে।
বড় ভাইয়ের পর ছোট ভাই জঙ্গি সম্পৃক্ততায় জড়িয়ে খবরে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিস্মিত হয়েছেন এলাকার সাধারণ মানুষ।
রোববার (২৩ অক্টোবর)  সরেজমিনে সৈয়দপুর পশ্চিমপাড়া লম্বাহাটি গ্রামে হাফেজ নাঈম ও সৈয়দ মারুফ আহমেদ মানিকের বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে বাড়িতে পিনপতন নীরবতা চলছে। ঘরের দরজা, জানালা বন্ধ করে ঘরে রয়েছেন তাদের বৃদ্ধা মা ছালমা বেগম।অনেক চেষ্টার পর তার সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন ,ছেলে মানিক কোথায় গেছে, কি করেন তিনি কিছুই জানেন না তিনি বলেন, মানিক বাড়িতে হাঁস, মুরগি, গবাদিপশু ও মাছের খামার চালাতেন। হঠাৎ করে কাউকে কিছু না বলে কোথায় চলে যায়। এখন খবর পেয়েছি সে র্যাবের হাতে ধরা পড়েছে। তিনি বলেন, আমি কিছু জানি না।তার বড় ছেলে নাঈমের বিষয়েও তিনি কিছু জানেন না বলে জানান। ২ ছেলে ও ২ মেয়ের জননী ছালমা বেগমের স্বামী সৈয়দ আবুল কালামের মৃত্যুর পর একজন গৃহপরিচারিকাকে নিয়ে বসবাস করছেন।মাঝে মধ্যে গ্রামেই বিয়ে হওয়া মেয়ে তার খোঁজ খবর নেন বলে তিনি জানান।
সৈয়দপুর গ্রামের বাসিন্দা সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য এমদাদ আহমেদ বলেন, ২০০৪ সালে হাফেজ নাঈম জঙ্গি তৎপরতায় সম্পৃক্ত থাকার পর থেকে এ পরিবারের সাথে এলাকার লোকজনের তেমন কোন সম্পর্ক নেই। তার ছোট ভাই মানিক স্হানীয় মাদ্রাসায় লেখাপড়া করে বাড়িতে হাঁস মুরগি গবাদিপশু ও মাছের খামার চালাতেন। হঠাৎ সে উধাও হয়ে যাওয়া ও মানিকের জঙ্গি তৎপরতার খবরে আমরা বিস্মত।
সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হাসান বলেন, বড় ভাইয়ের পর ছোট ভাইয়ের জঙ্গি সম্পৃক্ততার খবরে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। আমরা সকল অভিভাবকদের ছেলে মেয়েদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে আহ্বান জানাচ্ছি।
জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, নতুন করে জঙ্গি তৎপরতায় জগন্নাথপুরের এক যুবক গ্রেফতারের পর বিষয়টি আমাদেরকে ভাবিয়ে তুলছে। আমরাও তার সাথে আর কারো কোন সম্পৃক্ততা আছে কীনা খতিয়ে দেখছি।