চবির উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ২ জন পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান ও ৫ জন সদস্য পদত্যাগ করেছেন।


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ১০, ২০২৩, ৭:১৬ অপরাহ্ন / ৩৪৮
চবির উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ২ জন পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান ও ৫ জন সদস্য পদত্যাগ করেছেন।
চবির উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ২ জন পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান ও ৫ জন সদস্য পদত্যাগ করেছেন।
পদত্যাগকৃত শিক্ষকগন হলেন-প্রফেসর ড.মাহবুবুর রহমান(সাবেক ডিন,বায়োলজিক্যাল ফ্যাকাল্টি), প্রফেসর ড.অনিমষ বিশ্বাস, অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর তাপস কুমার ভৌমিক, অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর ইসরাত জাহান,অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর আবুল কাসেম, অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর মোজাম্মেল হক,অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর মিনহাজুর রহমান।
পদত্যাগকৃত কয়েকজন শিক্ষকের ফেইসবুক টাইমলাইন থেকে সংগ্রহকৃত –
“অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানানো যাচ্ছে যে, বিভাগীয় একাডেমিক ও প্ল্যানিং কমিটির সিদ্ধান্ত ব্যাতিরেকে এবং ক্ষেত্রবিশেষ সিদ্ধান্তের বিরোদ্ধে উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের বর্তমান সভাপতির (প্রফেসর ড. মুহাম্মদ হারুন-উর-রশীদ) কর্মকান্ডের বিরোদ্ধে প্রতিবাদের অংশ হিসেবে চলমান ১ম বর্ষ হতে এম.এস পর্যন্ত সকল বর্ষের পরীক্ষার কমিটি হতে দুই জন সভাপতি এবং পাঁচ জন সদস্য পদত্যাগ করেছেন। পদত্যাগকােরী শিক্ষকবৃন্দ সকল তত্ত্বীয় ও ব্যবহারিক পরীক্ষা এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।”
বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড.মাহবুবুর রহমান (সাবেক ডিন, বায়োলজিক্যাল ফ্যাকাল্টি) বলেন পরীক্ষা কমিটির ২ জন চেয়ারম্যান ও ৫ জন সদস্য পদত্যাগ করেছে প্লানিং এবং একাডেমিক কমিটির সিদ্ধান্তের বাইরে সিদ্ধান্ত নেওয়ায়।
প্লানিং কমিটি সম্পর্কে কিছু জানতে চাইলে তিনি বলেন ডিপার্টমেন্টের কোন সিদ্ধান্তে এক তৃতীয়াংশ উপস্থিত থাকতে হবে।এখানে কিছু কন্ডিশন উল্লেখ করে তিনি বলেন সকল পদবির শিক্ষক থাকতে হবে(লেকচারাল,এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর, অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ও প্রফেসর) কোনো কারনে কেউ উপস্থিত না থাকলে সিনিয়র সদস্য দিয়েই সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়।
তিনি স্পষ্ট করে বলেন আমাদের সিদ্ধান্ত অ্যালামনাই নিয়ে নয়,সিদ্ধান্ত নিয়েছি প্ল্যানিং ও একাডেমিক সিদ্ধান্তের বাইরে কাজ করার প্রতিবাদে।
শিক্ষকদের মধ্যে কোন্দলের জেরে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা স্থগিত করা নিয়ে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন,শিক্ষার্থীরা ভোগান্তির স্বীকার হোক এটা আমি মন থেকেই চাই না। প্রত্যেক কোন্দলের সমাধান আছে,শিক্ষার্থীদের যাতে সমস্যা না হয় সেই কাজ করা হবে,সময় হলে সব ঠিক হয়ে যাবে। অন্যদিকে পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ অফিসে ডিপার্টমেন্ট পরীক্ষা কমিটির ২ জন চেয়ারম্যান ও ৫ জন সদস্যসহ মোট ৭ জন পদত্যাগ করেছেন।
আগামীতে পরীক্ষা গুলো হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন কন্টোলারের সাথে যোগাযোগ করছেন,তারা যা সিদ্ধান্ত দেয় সেই অনুসারে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন। এদিকে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা স্থগিত,ফলে শিক্ষার্থীদের মাঝে  হতাশা সৃষ্টি হয়েছে।