খুলনা প্রেসক্লাবে ৩ দিনব্যাপী বসন্ত বরণ উৎসব শুরু হয়েছে।


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১৪, ২০২৩, ৮:৩৭ অপরাহ্ন / ৩২৭
খুলনা প্রেসক্লাবে ৩ দিনব্যাপী বসন্ত বরণ উৎসব শুরু হয়েছে।
খুলনা প্রেসক্লাবে ৩ দিনব্যাপী বসন্ত বরণ উৎসব শুরু হয়েছে।
মোঃ শামীম হোসেন – খুলনা –
খুলনা প্রেসক্লাবের শহীদ শেখ আবু নাসের ব্যাংকুয়েট হলে খুলনা অনলাইন শপিং এর আয়োজনে ৩ দিনব্যাপী বসন্ত বরণ উৎসব শুরু হয়েছে। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক শনিবার দুপুরে প্রধান অতিথি হিসেবে এই বসন্ত বরণ উৎসব উপলক্ষে আয়োজিত বসন্ত মেলার উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) পুলক কুমার মন্ডল, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শেখ আবু হাসান ও ফারুক আহমেদ, দৈনিক পূর্বাঞ্চল সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সনি, খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মল্লিক সুধাংশু, ক্লাবের সহ-সভাপতি মোঃ জাহিদুল ইসলাম, সহকারী সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম কাজল ও শেখ তৌহিদুল ইসলাম তুহিন, কার্যনির্বাহী সদস্য শেখ মোঃ সেলিম, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান খান রিয়াজ, খুলনা অনলাইন শপিং এর প্রতিষ্ঠাতা ফাতেমা আফরোজ, সদস্য ফারিয়া রহমান, মিসরাত মুক্ত আশা, শিমু, সিম্পা, রুকাইয়াসহ অন্যান্য সাংবাদিক ও অতিথিবৃন্দ। খুলনা প্রেসক্লাবের ব্যাংকুয়েট হলে ১২ ফেব্রুয়ারি রবিবার  সকাল ১০টা থেকে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার রাত ৮টা পর্যন্ত ৩ দিনব্যাপী এই বসন্ত মেলা চলবে। স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে স্বনামধন্য ৫৪টি স্টল এবারের বসন্ত মেলায় অংশ নিচ্ছে। মেলার স্টলগুলোতে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন রকমারী পণ্য, পিঠাসহ খাবার সামগ্রী পাওয়া যাচ্ছে।
❝টিসিবির❞ প্যাকেজ পেয়ে নিম্নআয়ের মানুষের মুখে হাসি । 
মেহেদি হাসান নয়ন, বাগেরহাট –
বাগেরহাট জেলার ফকিরহাট সদর ইউনিয়ন পরিষদে স্বল্প মূল্যে টিসিবি পন্য বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার (১৩ ফেব্রুয়ারি )সকাল ১০ টায় ইউনিয়ন পরিষদের ডিলারদের মাধ্যমে
তালিকাভুক্ত উপকারভোগীদের মাঝে এই টিসিবির পন্য বিতরণ করেন উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শিরিনা আক্তার কিসলু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ফকিরহাট ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শামসুজ্জামান,ইউনিয়ান পরিষদ সচিব আশীষ কুমার ব্যানার্জি, ডিলার জাকির হোসেন, ট্যাগ অফিসার সহ জনপ্রতিনিধি ও গ্রাম রক্ষাকারী বাহিনী উপস্থিত ছিলেন।
উপকারভোগীরা বলেন, নতুন পদ্ধতিতে টিসিবির পন্য পেয়ে আমাদের খুব ভাল লাগছে, আগে লাইনে দাড়িয়ে, টিসিবির পন্য পেতে হত নানা ধরণের বিড়ম্বনাও ছিল, পন্য পাওয়ার ক্ষেতে। কিন্তু এখন আমাদেরকে কার্ড প্রদান করা হয়েছে, কার্ড নিয়ে আসলাম ডিলার আমাদের পন্য দিলেন,আবার কবে পন্য পাবো তার তথ্য লিখে দেওয়া থাকে,এই পদ্ধতি আমাদের জন্য খুবই সুবিধাজনক হয়েছে।টিসিবির ডিলার মেসাস মুনির ট্রেডার্স এবং গিয়াস উদ্দিন জুয়েল বলেন, আগে আমাদের পন্য প্যাকেট করতে হত, গাড়ি নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যেতে হত, অনেক সময় পন্যের থেকে অতিরিক্ত লোক আসতেন। তাদের সামাল দিতে আমাদের অনেক ঝামেলা পোহাতে হত। এখন জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্যাকেট করে আমাদের দেওয়া হচ্ছে। উপকারভোগীও নির্দিষ্ট এই কারণে কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই আমরা পন্য বিক্রি করতে পারছি,উপকারভোগীরাও খুশি হচ্ছেন।
ফকিরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মনোয়ার হোসেন জানান, উপজেলায় ১০৯৭ এক হাজার সাতানব্বই জন উপকারভোগীদের মাঝে টিসিবির পন্য বিতরণ চলছে,প্রতিটি পরিবার ২ কেজি করে সয়াবিন তেল, ডাল ও চিনি পাবেন। একটি প্যাকেজের জন্য প্রতিটি পরিবারের ব্যয় হবে ৪৮০ টাকা।