খুলনার দাকোপে প্রায় প্রতিটি রাস্তার পাশে গরু বাঁধার কারণে বাড়ছে দুর্ঘটনা 


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ২, ২০২৩, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন / ১৯৫
খুলনার দাকোপে প্রায় প্রতিটি রাস্তার পাশে গরু বাঁধার কারণে বাড়ছে দুর্ঘটনা 
মোঃ শামীম হোসেন – খুলনা প্রতিনিধিঃ-
খুলনার দাকোপে প্রায় প্রতিটি রাস্তার পাশে গরু বান্দার কারণে বাড়ছে দুর্ঘটনা ফলে অকালে ঝরে যাচ্ছে অনেক তাজা প্রাণ। বাজুয়া ইউনিয়নের চুনকুড়ি ডাঙ্গা পাড়া গ্রামের বাসিন্দা আওয়ামী লীগ নেতা বিধান বিশ্বাস বলেন দাকোপ  উপজেলার কামরখোলা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড চান্নিরচক পশ্চিম পাড়া রাস্তায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা বেড়েই চলেছে বৃষ্টির দিনে জনগণের চলাচলের একমাত্র ইটের  রাস্তা এটি এই রাস্তা দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করে  হাজার হাজার লোকজন।  কিন্তু এই রাস্তাটি গরুর খামার হিসাবে ব্যবহার করছে এলাকার কিছু লোকজন।এতে করে বাড়ছে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা। বাজুয়ার মোটরসাইকেল চালক সজিব রায় বলেন রাস্তার পাশে বর্ষা মৌসুম আসলেই প্রায় লোক গরু বান্দে ফলে প্রায় গাড়ি চালকরা দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। তিনি বলেন বাজুয়া থেকে পোদ্দারগঞ্জ যাওয়ার সময় পশ্চিম বাজুয়া মোড়ে ও চুনকুড়ি যেখানে ব্রিজ হচ্ছে ওর কাছাকাছি রাস্তায় প্রায় সব সময়ই গরু রাস্তায় বান্দা থাকে এর ফলে গাড়ি চালানোর সময় খুব সাবধানে গাড়ি চালাতে হচ্ছে। কেননা রাস্তায় গরু প্রসাব-পায়খানা করার ফলে বৃষ্টি হলেই তা রাস্তায় ছড়িয়ে পরছে। আর রাস্তা প্রচন্ড সিলিপ হচ্ছে ফলে ছোট ঘাটো এমনকি বড় ধরনের দুর্ঘটনা প্রায় লেগে আছে।  এলাকা ঘুরে একই অভিযোগ পাওয়া যায় দাকোপ উপজেলার সকল ইউনিয়নে বর্ষা মৌসুম এলে বিশেষ করে আমন ধান জমিতে বনা শুরু থেকে ধান কাটার আগ পর্যন্ত এবং তরমুজ লাগানোর সময় থেকে বিক্রয় করার আগ পর্যন্ত সময়টা এলাকার গরু-ছাগলের মালিকরা তাদের গরু- ছাগল দিনের বেলায় বাড়ির গোয়াল থেকে বের করে রাস্তায় বাধে এবং সারাদিন সেখানেই রেখে খড়- কুটা, ঘাস খাইয়ে থাকে। সন্ধ্যার সময় রাস্তা থেকে গরু নিয়ে গোয়ালে বাধে আবার সকাল হলে রাস্তার পাশে বাধে এই ভাবেই চলছে দাকোপের প্রতিটি ইউনিয়নে গরু পালন করার স্টেম। লাউডোব ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি  সাগর চন্দ্র বাছাড় বলেন আমার এলাকায় রাস্তায় শুধু গরু বাঁধে না গরুর গোবরও রাস্তায় নেড়ে দিয়ে শুকানো হয় আর গাড়ি চালাতে গিয়ে পরতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত বিপাকে। তিনি আরো বলেন গরুর মালিকদের রাস্তায় গরু বাধতে নিষেধ করলেও এরা কথা শনেনা। এবার ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট সভায়ও এর হাত থেকে পরিত্রান পাওয়ার জন্য অভিযোগ করার পরও এর কোন সুরাহ হচ্ছে না। যা তাই কে কার বারন বা নিষেধ শনে। বানিশান্তা ইউনিয়ন ঘুরে ও একই অভিযোগ জানায় এলাকার গাড়ি চালকরা তারা বলেন এদের রাস্তায় গরু বাঁধতে নিষেধ করলে বলে আমার বাড়ির সামনে আমি গরু বাঁধবো তোদের কি। কি বলবো সাংবাদিক ভাই এরা কেউ চেয়ারম্যানের লোক কেউ বড় কোন নেতার লোক তাই আমাদের প্রতিনিয়ত মৃত্যুকে মেনে নিয়ে গাড়ি চালাতে হচ্ছে আর গঠছে দুর্ঘটনা কেউ গাড়ি নিয়ে পড়া খেয়ে হাত- পা ভাগছে কেউ বা মারা যাচ্ছে। এভাবেই দাকোপে দুর্ঘটনা বেড়েই চলেছে। এই দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে এলাকাবাসী যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে দ্রুত।