কৃষিতে অনবদ্য অবদানের জন্য গৌরীপুরের কৃষক আবুল ফজলের ১ম পুরস্কার লাভ।


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৩০, ২০২২, ৯:০৯ অপরাহ্ন / ৫৩০
কৃষিতে অনবদ্য অবদানের জন্য গৌরীপুরের কৃষক আবুল ফজলের ১ম পুরস্কার লাভ।
কৃষিতে অনবদ্য অবদানের জন্য গৌরীপুরের কৃষক আবুল ফজলের ১ম পুরস্কার লাভ।
আব্দুর রউফ দুদু, (ময়মনসিংহ) গৌরীপুর প্রতিনিধিঃ
বোরো ধানে উৎপাদন বৃদ্ধিতে অধিক ফলনশীল জাত ও প্রযুক্তি সমুহের বিস্তার এবং ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিতে করণীয় শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় অবহিতকরন কর্মশালা ও কৃষক পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠান ২০২২ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার(২৮ নভেম্বর)কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর ময়মনসিংহ অঞ্চল ময়মনসিংহ ও বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরন প্রকল্প,ডিএই’র আয়োজনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ময়মনসিংহ সৈয়দ নজরুল ইসলাম সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত অবহিতকরন কর্মশালায়  কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ আশরাফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার মোঃ শফিকুর রেজা বিশ্বাস,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর ঢাকা অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ এস এম সোহরাব উদ্দিন।কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর টাংগাইল-এর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আহসানুল বাশার এবং উপ-পরিচালক, ময়মনসিংহ কৃষিবিদ মতিউজ্জামান।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরন প্রকল্পেরর পরিচালক মোঃ জিয়াউর রহমান।
কর্মশালায় বোরো ধানে উৎপাদন বৃদ্বিতে অধিক ফলনশীল জাত ও প্রযুক্তি সমুহের বিস্তার এবং ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিতে করণীয় শীর্ষক আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্ততর  ময়মনসিংহ অঞ্চল, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর খামারবাড়ী, নালিতাবাড়ী,শেরপুর।
অনুষ্ঠান উদ্যোক্তা কৃষকদের নিয়ে অতিথিদের এক মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় কৃষকদের নানাবিধ সমস্যা ও সমাধানের আলোচনা হয়।
কৃষিতে অনবদ্য অবদানের জন্য স্বীকৃতি স্বরুপ কৃষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরনে বৃহত্তর মময়মনসিংহ অঞ্চলের কৃষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করা হয় এতে প্রথম পুরস্কার লাভ করেন গৌরীপুর উপজেলার বোকাইনগর ইউনিয়নের বালুচড়া গ্রামের কৃষক আবুল ফজল।
 “গৌরিপুরে বাবার সাথে এসএসসি পাশ করলেন ছেলেও”
মাহাবুবুল আলম সোহাগ,  ময়মনসিংহ –
ময়মনসিংহের গৌরীপুরে বাবা ছেলে এক সাথে এসএসসি পাশ করেছেন। বাবা সাবেক ইউপি সদস্য এখলাছ উদ্দীন নয়ন কারিগরী শাখা পেয়েছে জিপিএ-৫ ও ছেলে রাকিবুল হাসান রায়হান একই শাখা থেকে ৪.৮৬ পেয়ে পাশ করেছেন।
এখলাস উদ্দিন নয়ন উপজেলার ২ নম্বর গৌরীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য। তিনি নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া মগরাইল আদর্শ কারিগরি ইনস্টিটিউট থেকে এবং ছেলে রাকিবুল হাসান রায়হান গৌরীপুর সরকারী টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ছিলেন।
ছেলে রাকিবুল হাসান রাইহান বলেন, লেখাপড়ার কোন বয়স নাই। বাবার সাথে একসাথে এসএসসি পাশ করে আমি গর্ববোধ করছি। আপনারা দোয়া করবেন আমি যেন একজন প্রকৌশলী হতে পারি।
নয়ন জানান, তিনি ১৯৯৬ সনে এসএসসি পরিক্ষার্থী ছিলেন কিন্তু অসুস্থতার কারণে পরীক্ষা দিতে পারেননি। ছেলে মেয়েরা লেখাপড়া করছেন, স্ত্রীও এসএসসি পাশ। তাই আমি লেখাপড়া করার সিদ্ধান্ত নেই। এবছর এসএসসি পাশ করেছি। এই বছরই কলেজে ভর্তি হবেন বলেও জানান তিনি।
এবিষয়ে মগরাইল আদর্শ কারিগরি ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ আব্দুল কাইয়ুম বলেন, নয়ন আমার প্রতিষ্ঠানের নিয়মিত শিক্ষার্থী। সে এই বছর জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি পাশ করায় আমরা গর্বিত।
গৌরীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাসান মারুফ বলেন, এ ধরণের উদাহারণ সমাজের জন্য খুবই ইতিবাচক । তার এই সফলতা নতুন প্রজন্মকে উদ্দিপ্ত করবে । আমারা তার সাফল্যকে অভিনন্দন জানাই ।