“এপিএ ১২ সিটির মধ্যে দ্বিতীয় ময়মনসিংহ”


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৬, ২০২২, ৩:৩৫ অপরাহ্ন / ২৯০
“এপিএ ১২ সিটির মধ্যে দ্বিতীয় ময়মনসিংহ”
“এপিএ ১২ সিটির মধ্যে দ্বিতীয় ময়মনসিংহ”
মাহাবুবুল আলম সোহাগ (ময়মনসিংহ)
বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) বাস্তবায়নে দেশের ১২ সিটি করপোরেশনের মধ্যে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন (মসিক) দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে। মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটুর সফল নেতৃত্বে টানা দ্বিতীয়বার এই সিটি করপোরেশন দ্বিতীয় স্থান অর্জন করল এপিএ বাস্তবায়নে। এ ছাড়াও স্থানীয় সরকার বিভাগের ২০টি দপ্তর ও সংস্থার মধ্যে পঞ্চম স্থান অধিকার করেছে মসিক। গত বছর ছিল সপ্তম স্থানে।
এপিএ মূলত প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসেবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসেবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের সচিবের মধ্যে স্বাক্ষরিত একটি সমঝোতা দলিল। সরকারি কর্মকর্তাদের স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতা বৃদ্ধি, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারি কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির আওতায় বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি প্রবর্তন করা হয়েছে। এই চুক্তিতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের কৌশলগত উদ্দেশ্যসমূহ, এসব উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য গৃহীত কার্যক্রমসমূহ এবং এসব কার্যক্রমের ফল পরিমাপের জন্য কর্মসম্পাদন সূচক ও লক্ষ্যমাত্রাসমূহ বিধৃত রয়েছে। সংশ্লিষ্ট অর্থবছর সমাপ্ত হওয়ার পর ওই বছরের চুক্তিতে নির্ধরিত লক্ষ্যমাত্রাসমূহের বিপরীতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের প্রকৃত অর্জন মূল্যায়নের অংশ হিসেবে এই ফল নির্ধারণ করা হয়েছে।
দেশের ১২টি সিটি করপোরেশনের মধ্যে সৎ, চৌকস, বিনয়ী, কর্মঠ ও মানবিক এবং সর্বস্তরে গ্রহণযোগ্য মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু নেতৃত্বে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির (এপিএ) সফল বাস্তবায়নে দ্বিতীয় বারের মতো দ্বিতীয় স্থান অর্জন করা মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। তাদের মধ্যে রয়েছেন- ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলনের সভাপতি অ্যাডভোকেট এএইচএম খালেকুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা নূরুল আমিন কালাম, বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিক্যাল প্র্যাকটিশনার্স অ্যাসোসিয়েশন ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি ও বাংলাদেশ প্রাইভেট ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক অনার্স অ্যাসোসিয়েশন ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি এবং জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা. হরিশংকর দাশ, জেলা বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. এইচ. এ গোলান্দাজ তারা, গণকণল্যাণ পরিষদ (জিকেপি) নির্বাহী পরিচালক, শম্ভুগঞ্জ জিকেপি অনার্স কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও গভর্নিং বডির সভাপতি বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ লায়ন ড. মো. সিরাজুল ইসলাম, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এফ.এম. এ সালাম ও সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।