“কিশোরগঞ্জের রবিন  নেইমারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু , রয়েছেন  বাংলাদেশের  প্রচারের দায়িত্বে”


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২০, ২০২২, ৭:৫৯ অপরাহ্ন / ৪৫৩
“কিশোরগঞ্জের রবিন  নেইমারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু , রয়েছেন  বাংলাদেশের  প্রচারের দায়িত্বে”

“কিশোরগঞ্জের রবিন  নেইমারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু , রয়েছেন  বাংলাদেশের  প্রচারের দায়িত্বে”
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি –
কিশোরগঞ্জের ভৈরবের ছেলে রবিন মিয়া। ১৫ বছর আগে পাড়ি জমান ব্রাজিলে। সেখানে কৃষি ব্যবসার সাথে জড়িত রবিন। এক ব্রাজিলিয়ান বন্ধুর সুবাদে সখ্যতা গড়ে উঠে ব্রাজিল ফুটবল দলের তারকা খেলোয়াড় নেইমারের সাথে। সেই থেকে হয়ে উঠেন নেইমারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। শুধু তাই নয়, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নেইমারের প্রচারণার দায়িত্বও রবিনের কাঁধে তুলে দিয়েছেন নেইমার। নেইমারের পরিবারের সাথেও রয়েছে রবিনের ভালো সম্পর্ক। নেইমারের জীবনের বড় অংশ জুড়ে রয়েছেন ভৈরবের ছেলে রবিন। রবিন মিয়া কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়নের গাজিরটেক এলাকার মোল্লাবাড়ির হাজি আব্দুস সাত্তারের ছোট ছেলে। উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে ১৫ বছর আগে পাড়ি দেন ব্রাজিলে। পরিবারের চার ভাই ও তিন বোনের মধ্যে সবার ছোট রবিন। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ছিল রবিনের ছেলের জন্মদিন। ওইদিন নেইমার এক ভিডিও বার্তায় তার বন্ধু রবিনের ছেলের জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান। সেইসঙ্গে ছেলের জন্য সুস্বাস্থ্য ও শুভ কামনা করেন এই তারকা ফুটবলার। এমন ভিডিও বার্তা প্রকাশের পর থেকেই আলোচনায় আসেন রবিন। মো. রবিন মিয়া সাংবাদিকদের জানান, ‘ব্রাজিলের তারকা খেলোয়াড় নেইমার আমার একজন ভালো বন্ধু। তিনি বিশ্বের একজন তারকা কিন্তু তার মধ্য আত্ম-অহংকার নেই। নেইমারের সঙ্গে আমার পরিচয় হয় ব্রাজিলিয়ান এক কাছের বন্ধু জোয়ান সেলসোর মাধ্যমে। তিনিও নেইমারেরও কাছের বন্ধু। তার সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক থাকায় তার পরিবারের সঙ্গেও বেশ ভালো সম্পর্ক রয়েছে। তাই নেইমারের পরিবারের ভেতরের খবরও সব জানা রয়েছে আমার। মো. রবিন মিয়া আরো জানান, ‘আন্তর্জাতিক ভাবে অনেক দেশে নেইমারের প্রচারের কাজটা করি আমি আর জোয়ান। আন্তর্জাতিকভাবে তার যে ফেসভ্যালু আছে, সেটা আমরা বহুজাতিক কোম্পানির কাছে নিয়ে যাই, তারাও আমাদের কাছে আসেন। আমরা এ কাজগুলো করি। আমাদের দেশে যে নেইমারের অনেক ভক্ত-সমর্থক রয়েছে সেটাও তিনি ভালোভাবেই জানেন।’ নেইমার সম্পর্কে রবিন মিয়া আরো জানান, আসলে আপনারা তাকে খেলোয়াড় হিসেবে দেখেন। আমি দেখি, আমার একজন বন্ধু ফুটবল খেলে। সে সুপারস্টার। মানুষ হিসেবে নেইমার খুবই ভালো। আমি যে কোনো সেলিব্রিটি না। আমি বাংলাদেশি, আমি কোনো ফুটবলারও না। ধনী পরিবার থেকেও উঠে আসিনি আমি। কিন্তু নেইমারের ব্যবহারে তা বোঝা যায় না। আর সবার মতোই তিনি ও তার পরিবার আমার সঙ্গে মেশে। নেইমার আমার সঙ্গে কার্ডও খেলেন। একসঙ্গে খাবার খায়। নেইমারের ফ্যামিলির ফুল লজিস্টিক সাপোর্ট দিচ্ছি আমি।

“সেরা শিশু-কিশোর সংগঠন হিসেবে সম্মাননা পেল শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশন”
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি –
বাংলাদেশ কালচারাল কল্যাণ পরিষদের ৫ম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে সেরা শিশু-কিশোর সংগঠন হিসেবে সম্মাননা দেওয়া হয়েছে শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশন কে। এসময় একই ক্যাটাগরিতে আরও ৪ সংগঠন কে সম্মাননা দেওয়া হয়।
১৮ নভেম্বর ( শুক্রবার) ঢাকায় বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়৷ শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দীন আলম ভান্ডারীত হাতে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এস এম মুজিবর রহমান সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাবিদ ও রাষ্ট্র গবেষক প্রফেসর ডঃ শহীদ মনজু,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল মোমেন শিকদার ও বাংলাদেশ কালচারাল কল্যাণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তাহেরা খাতুন। শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশন মূলত স্কুল শিক্ষার্থীদের টিফিনের জমানো টাকায় প্রতিষ্ঠিত একটি মানবিক সংগঠন। ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে আর্তমানবতার সেবায় কাজ করে হোসেনপুর উপজেলাজুড়ে ব্যাপক সুনাম কুড়িয়েছে।
সম্মাননা পাওয়ার অনুভুতি সম্পর্কে শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দীন আলম ভান্ডারী বলেন, পুরষ্কার সবসময় কাজের মাত্রার গতি বাড়িয়ে দেয়। এই সম্মাননা আমাদের দায়িত্ব আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। এই পুরষ্কার আমাদেরকে দেশব্যাপী কাজ করার সুযোগ সৃষ্টিতে সহয়তা করবে৷